আজ পহেলা মার্চ। দীর্ঘ নয়মাস একটানা মুক্তি সংগ্রামের পর বাংলাদেশ তার স্বাধীনতার সূর্যের আলোয় উদ্ভাসিত হয় ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ। আর পঁচিশ দিন পরই বাংলাদেশের কোটি কোটি মানুষ উদ্যাপন করবে এদেশের মহান জাতীয় ও স্বাধীনতা দিবসকে। দোয়া করবে, শ্রদ্ধা ভরে স্মরণ করবে স্বাধীনতা সংগ্রামে আত্মদানকারী লাখ লাখ বাংলাদেশীকে। যাদের মধ্যে ছিল শিশু-কিশোর, বৃদ্ধ এবং অন্যান্য যুব ও যোদ্ধারা।

আপনারা জানেন কি?
————

প্রথমদিকে ক্যালেন্ডারে তারিখ বলে কিছু ছিলোই না, মাস হিসেব করা হতো চাঁদ দেখে দেখে। আর মাস ছিলো মোটে ১০টা! জানুয়ারি আর ফেব্রুয়ারি মাস ছিলোই না। নববর্ষ পালন করা হতো পহেলা মার্চ। পরে রোমান সম্রাট নুমা পন্টিলাস জানুয়ারি আর ফেব্রুয়ারি মাস যোগ করেন। আর বিখ্যাত সম্রাট জুলিয়াস সিজার ক্যালেন্ডারে বসান তারিখ।


ইতিহাসের এই দিনে …

—————

১৪৯৮ সালে ভাস্কো দা গামা মোজাম্বিক আবিষ্কার করেন।
১৭৮০ সালে মার্কিন অঙ্গরাজ্য পেনসিলভানিয়া থেকে দাসপ্রথা নির্মুল করা হয়।
১৮১১ সালে মিশরের মোহাম্মদ আলী মামলুকদের বিপর্যস্ত করে ক্ষমতায় আসেন।
১৯০৭ সালে অবিভক্ত ভারতের প্রথম ইস্পাতখানা প্রতিষ্ঠিত হয়।
১৯১৫ সালে লন্ডনে অন্ধদের জন্য হোস্টেল খোলা হয়।

১৮৮৩ সালে কবি কুমুদরঞ্জন মল্লিকের জন্ম।
১৯১০ সালে রসায়নে নোবেলজয়ী (১৯১২) ইংরেজ বিজ্ঞানী আর্চার জন পোটরির জন্ম।
১৯১১ সালে রসায়নে নোবেলজয়ী (১৯০১) ডাচ বিজ্ঞানী হেন্ড্রিকাস ভান্ট হফের মৃত্যু।